1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha : Sardar Dhaka
  2. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
  3. rafiqul@mohajog.com : Rafiqul Islam : Rafiqul Islam
  4. sardar@mohajog.com : Shahjahan Sardar : Shahjahan Sardar
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১২:৫৩ অপরাহ্ন

বিটিসিএলের পাওনা আদায়ে ব্যর্থ বিটিআরসি

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই, ২০১৬
  • ২৫০ বার

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) বারবার নোটিশ পাঠিয়েও বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশনস কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) কাছ থেকে এক হাজার ৭৬৯ কোটি টাকা বকেয়া পাওনা আদায় করতে পারছে না।

অক্টোবর ২০০৮ থেকে বিটিসিএল মূল্যায়ন ফি, লাইসেন্স ফি এবং রাজস্ব শেয়ার বাবদ বিটিসিএলের কাছ থেকে এসব টাকা পাবে কমিশন।

সম্প্রতি বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বিষয়টি সুরাহা করে দেয়ার জন্য ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের হস্তক্ষেপ কামনা করে একটি চিঠিও দিয়েছেন।

এর বাইরে কিছুদিন আগে পৃথক নোটিশে বকেয়া পরিশোধে ব্যর্থ হলে বিটিসিএলের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার হুমকিও প্রদান করা হয়েছে বিটিআরসির পক্ষ থেকে। এতেও কোনো কাজ হচ্ছে না বলে আক্ষেপ করেছেন একাধিক কর্মকর্তা। তারা বলছেন, জিটুজি সম্পর্কটি এখানে অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে। রেগুলেটরি কমিশন হওয়ার পরও বিটিআরসি কঠোর কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছে না।

চিঠিতে আরও উল্লেখ করা হয়, যদিও বিটিআরসি অন্যান্য ব্যক্তিগত লাইসেন্স হোল্ডারদের বিরুদ্ধে এমতাবস্থায় কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করে, কিন্তু টেলিযোগাযোগ খাতে শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য এখনো তারা রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বিটিসিএলের বিরুদ্ধে কোনো শক্ত পদক্ষেপ নেয়নি।

জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১২ আগস্ট এই একই ইস্যুতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়কে চিঠি পাঠিয়েছিল বিটিআরসি। সে সময় মন্ত্রণালয় বিটিআরসি`র বকেয়া পরিশোধ করতে বিটিসিএলকে নির্দেশও দিয়েছিল। তবে বিটিসিএল টেলিযোগাযোগ খাতের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হতে পারে জেনেও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে বলেও উল্লেখ করা হয় সাম্প্রতিক চিঠিতে।

এ বিয়য়ে ডাক এবং টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব এবং বিটিসিএলের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ফাইজুর রহমান চৌধুরী জাগো নিউজকে বলেন, বিটিআরসি সহজে বিটিসিএলের বিরুদ্ধে কোনো আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবে না। কেননা দুটিই সরকারি সংস্থা। এটি একটি কঠিন কাজ। তবে বিষয়টি সুরাহা করা জরুরি। কারণ টাকার পরিমাণ অনেক। এই প্রাকটিস বন্ধ না হলে সরকারি অন্যান্য প্রতিষ্ঠানও এই ধারা অনুসরণ করবে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 Mohajog