1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
  2. mohajog@yahoo.com : Daily Mohajog : Daily Mohajog
  3. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
শনিবার, ১২ জুন ২০২১, ০৯:০৯ অপরাহ্ন

জাহাজ বিল্ডিং ছাড়তেও ভোগান্তিতে ভাড়াটিয়ারা

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩১ জুলাই, ২০১৬
  • ৬৭ বার

কল্যাণপুরের ৫ নম্বর রোডের ৫৩ নম্বর জাহাজ বিল্ডিং (তাজ মঞ্জিল) ছাড়তে শুরু করেছে ভাড়াটিয়ারা। আতঙ্ক আর পুলিশভীতির মধ্যেই রোববার থেকে ভাড়াটিয়ারা বাড়িটি ছাড়তে শুরু করেছেন। ঘটনার পর গেল কয়েকদিনে চেষ্টা করেও বাড়িটিতে প্রবেশ করতে না পেরে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয় ভাড়াটিয়াদের।

গত ২৬ জুলাই রাতে পুলিশ কল্যাণপুরে ব্লক রেইড দিতে এসে ওই বাসায় জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পায়। পরে সকালে ঘণ্টাব্যাপী অভিযান চালানো হয়। অপারেশন স্টর্ম-২৬ এ নিহত হয় ৯ জঙ্গি সদস্য।

এরপর জঙ্গিসংশ্লিষ্টতা খুঁজতে ও অন্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করতে মোট ৫২ জন ওই বাসা থেকে আটক করে মিরপুর থানায় নেয়া হয়। সেখানে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে চারজনকে বাদে সবাইকে ছেড়ে দেয় পুলিশ।

ভাড়াটিয়াদের অভিযোগ, পুলিশি অভিযানের পর গত ২৭ তারিখ বিকেলে জিজ্ঞাসবাদের জন্য থানায় নেয়া হয়। ওই সময় প্রয়োজনীয় সবকিছুই ছিল ওই বাড়িতে। রাতভর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে চারজন বাদে সবাইকে ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু এরপর আজ (রোববার) সকাল পর্যন্ত ওই বাসায় কেউই প্রবেশ করতে পারেননি।

এ কারণে চাকরীজীবী-পরীক্ষার্থীরা পড়েছেন মহাবিপাকে। অনেককেই অফিসের পরিচয়পত্র, পরীক্ষার প্রবেশপত্র, মোবাইল, ল্যাপটপ রেখেই তাৎক্ষণিক পরিস্থিতিতে থানায় যেতে হয়েছিল, যা নিতে পারেননি তারা। এ কারণে কর্মক্ষেত্র ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন তারা। অনেককে আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুদের বাসায় থাকতে হচ্ছে।

পুলিশের পক্ষ থেকেও ওই বাসায় থাকার বিষয়টিকে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। পুলিশি নিরাপত্তাও কমানো হয়নি। বাসাটির সামনে ও রাস্তার দুই গলিতেই পুলিশি চৌকি বসানো হয়েছে। তবে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্তৃপক্ষের নির্দেশে রোববার দুপুর থেকে ভাড়াটিয়াদের ছেড়ে দেয়ার ও ঢোকার অনুমতি মিলেছে। যদিও মেলেনি থাকার অনুমতি।

ওই বাসায় থাকতে আগ্রহী নন এমন ভাড়াটিয়াদের পর্যায়ক্রমে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে মিরপুর থানা পুলিশ।

রোববার বিকেলে সরেজমিনে দেখা যায়, জাহাজ বিল্ডিংয়ের ওই বাসার ছয়তলার একটি ইউনিটের ব্যাচেলর ভাড়াটিয়ারা বাসার মালামাল নিয়ে বেড়িয়ে যাচ্ছেন। পিকআপভ্যান, ভ্যান ও রিকশায় মালামাল স্থানান্তর করছেন তারা।

আল্লামা ইকবাল অনিক নামে এক ব্যাচেলর বাসিন্দা জাগো নিউজকে বলেন, দীর্ঘ ৪/৫ বছর ধরে এই বাসায় থেকেছি। কখনো এমন বিড়ম্বনা ও অপ্রীতিকর ঘটনার সম্মুখীন হইনি। কিন্তু উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আজ বাসা ছেড়ে চলে যেতে হচ্ছে। আপাতত এক বড় ভাইয়ের বাসায় উঠেছি। তবে স্থায়ী গন্তব্য এখনো নির্ধারণ করা হয়নি।

একই অবস্থা তার সঙ্গে অন্য ব্যাচেলর ভাড়াটিয়ার। কেউ বন্ধুর বাসায়, কেউবা আত্মীয়ের বাসায় আপাতত উঠছেন। সুযোগ বুঝে বাসা ভাড়া নিয়ে উঠে পড়বেন তারা।

আগামীকাল (সোমবার) সকালে মালামাল নিতে আসবেন বলে পুলিশকে জানিয়েছেন বাসাটির তিন তলার ভাড়াটিয়া। অন্যদিকে পুলিশের অসহযোগিতার কারণে মালামাল নিতে এসেও ফিরে গেছেন বাসাটির ৭ তলার চিলেকোঠার চার বাসিন্দা।

এদের মধ্যে মমিন ও খালেকুজ্জামান নামে দুজনের সঙ্গে কথা হয় জাগো নিউজের এই প্রতিবেদকের।

আউটসোর্সিংয়ের একটি ইতালিয়ান ফার্মে বনানী শাখায় কাজ করেন তিনি। তিনি জানান, গত চার দিন ধরে এক কাপড়ে আছি। অফিসে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়ছি কার্ড না থাকায়। অফিসের আইডি কার্ড, জাতীয় পরিচয়পত্র, মানিব্যাগ, মোবাইল, ল্যাপটপ সবই ওই বাসায় আটকা। কোনো কাজই করতে পারছেন না তিনি। গত তিন দিন তাই ছুটি কাটাতে হয়েছে।

অন্যদিকে বাংলাদেশ ইউনির্ভাসিটির কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র খালেকুজ্জামানও জানান একই অবস্থার কথা।

এ ব্যাপারে ওই বাসার নিরাপত্তার দায়িত্বে মিরপুর পুলিশ লাইন থেকে আসা পুলিশের টিমের প্রধান, সহকারী উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) আজিজুর রহমান জাগো নিউজকে বলেন, থানা পুলিশের ক্লিয়ারেন্স ছাড়া কোনো ভাড়াটিয়াকে ছাড়া হচ্ছে না। যেই আসুক ভোটার আইডি কার্ড ও চাকরির প্রতিষ্ঠানের আইডি কার্ডের ফটোকপি জমা নেয়া হচ্ছে। সকাল সাড়ে ৭টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত যে কোনো সময় ভাড়াটিয়ারা মালামাল নিয়ে যেতে পারবেন।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog