1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha : Sardar Dhaka
  2. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
  3. rafiqul@mohajog.com : Rafiqul Islam : Rafiqul Islam
  4. sardar@mohajog.com : Shahjahan Sardar : Shahjahan Sardar
সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০৬ পূর্বাহ্ন

দীঘল কালো লম্বা চুলের গাঁ

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৬
  • ৩২০ বার

ঢাকা: নারীদের দীঘল কালো চুল যুগ যুগ ধরে প্রশংসনীয়। কিন্তু চীনের হুয়াংলু গ্রামের স্থানীয় ইয়াও গোষ্ঠীর কাছে নারীদের লম্বা কালো চুল তাদের ঐতিহ্যের অংশ ও অত্যন্ত ম‍ূল্যবান সম্পদ।

দেশটির গুলিনের লংজি সিনেটিক এরিয়ায় অবস্থিত হুয়াংলু গ্রাম। রেড ইয়াও গোষ্ঠীর ৮২টি পরিবারের বসতবাড়ি এখানে। রেড ইয়াও নামকরণের কারণ- তাদের রোজকার পরিহিত লাল কাপড়। এ গোষ্ঠীর সবচেয়ে আকর্ষণীয় জিনিস, নারীদের লম্বা চুলের আবেশ। বস্তুত ইয়াও উপনিবেশ ‘বিশ্বের দীর্ঘতম চুলের গ্রাম’ হিসেবে একটি গিনেস সার্টিফিকেট পেয়েছে। এখানকার একশো ২০ নারীর চুলের গড় দৈর্ঘ্য সাড়ে পাঁচ ফুট। আর সবচেয়ে দীর্ঘতম কেশ দৈর্ঘ্য ঠেকেছে প্রায় সাত ফুটে।

আগে রেড ইয়াওদের জীবনে চুল ছিলো সম্পদের মতো। এতটাই দামি যে স্বামী-সন্তান ছাড়া কেউ নারীদের খোলা চুলে চোখ রাখার অনুমতি পেতো না। তখনকার দিনে গ্রীষ্ম বা শরতে নারীরা মাথায় নীল ওড়না বেঁধে নদীতে চুল ধুতে যেতো। প্রাণেশ্বর ছাড়া এ চুলের সৌন্দর্য কাউকে দেখানো যাবে না! এটাই নিয়ম। আর ওই প্রাণেশ্বরও ওই চুল দেখতে পাবে বিয়ের মঞ্চে, এর আগে না।

যদি কোনো স্থানীয় বা বিদেশি কোনো তরুণীর চুল দেখার জন্য বাড়াবাড়ি করতো, তাহলে শাস্তি হিসেবে তিনবছর তাকে ওই তরুণীর বাড়িতে জামাই হয়ে থাকতে হতো। কিন্তু পুরনো এ ঐতিহ্যগত কড়া নিয়ম ভেঙে যায় ১৯৮৭ সালে।

এখন ইয়াও নারীরা স্বগর্বে উন্মুক্ততায় নিজের চুল আঁচড়াতে পারে। তাদের ঝলমলে কেশে চোখ রাখতেও অন্যদের মানা নেই।

হুয়াংলুর নারীরা তাদের জীবদ্দশায় কেবল একবার চুল কাটতে পারেন। যখন তাদের বয়স ১৬ হয় ও তারা জীবনসঙ্গী খুঁজতে শুরু করেন তখনই চুল কাটা যাবে। কিন্তু ওই কাটা চুল ফেলে দেওয়া যাবে না। এটা ওই কিশোরীর দাদিমার হাতে দিতে হবে। এ চুল তৈরি অলঙ্কৃত শিরস্ত্রাণ ষোড়শীর বিয়ের দিন তার বরকে উপহার দেওয়ার নিয়ম প্রচলিত। পরে অবশ্য শিরস্ত্রাণটি ষোড়শীর দৈনন্দিন সাজের অংশ হয়।

বলা হয়ে থাকে, রেড ইয়াও নারীর চুলের তিনটি স্তবক। প্রথম হলো চুল যা প্রতিদিন গাজায়। দ্বিতীয়ত, কেটে ফেলা অংশ ও তৃতীয় হচ্ছে, ঝরে পড়া চুল যা রোজই সংগ্রহ করা হয়। তিন স্তবকের চুলবিন্যাস তাদের সামাজিক মর্যাদার প্রতিনিধিত্ব করে।

তবে তাদের হেয়ারস্টাইলেরও কয়েকটি মাত্রা রয়েছে। যদি কোনো নারী চ‍ুল সাধারণভাবে মাথার চারপাশে জড়িয়ে রাখে তাহলে বুঝতে হবে সে বিবাহিত। কিন্তু তার কোনো সন্তান নেই। যদি সে তার মাথায় রুমাল জড়িয়ে রাখে, তার মানে সে জীবনসঙ্গী খুঁজছে।

চুলের যত্নে রেড ইয়াও ব্যবহার করে একটি বিশেষ শ্যাম্পু। চাল ধোয়া পানি দিয়ে হয় চুলের চর্চা। কিন্তু কেন তারা লম্বা চুলকে এত প্রাধান্য দেয়? কারণ তাদের বিশ্বাস- লম্বা চুল আয়ু, ধন-সম্পদ ও সৌভাগ্য বয়ে আনে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 Mohajog