1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
  2. mohajog@yahoo.com : Daily Mohajog : Daily Mohajog
  3. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
রবিবার, ১৩ জুন ২০২১, ০৭:৩৯ অপরাহ্ন

ভারত থেকে আসছে আরও ৬০০ বাস-৫০০ ট্রাক

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩০ আগস্ট, ২০১৬
  • ১২৪ বার

ঢাকা: গণপরিবহনের সংখ্যা বাড়িয়ে ঢাকা মহানগরীসহ সারা দেশে সমন্বিত ট্রান্সপোর্ট সিস্টেম প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ভারত থেকে আরও ৬০০টি বাস কিনছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি)। একইসঙ্গে কেনা হবে ৫০০টি ট্রাকও।

পৃথক দু’টি প্রকল্পের আওতায় এসব বাস ও ট্রাক কেনা হবে। ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের জুন মেয়াদে প্রকল্প দু’টি বাস্তবায়ন করবে বিআরটিসি।

ভারত থেকে আরো দুই বিলিয়ন ডলার (২০০ কোটি ডলার) নমনীয় ঋণ (এলওসি) পেয়েছে বাংলাদেশ। অবকাঠামো বিশেষ করে রেল, যোগাযোগ, বিদ্যুৎ ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে এ অর্থ ব্যবহার করতে পারবে বাংলাদেশ। অন্তত ৭৫ শতাংশ পণ্য ও সেবা অবশ্যই ভারত থেকে আমদানি করতে হবে।

৬০০টি বাস কিনতে মোট ব্যয় করা হবে ৫৮০ কোটি ৮৭ লাখ টাকা, যার মধ্যে ৪৩৪ কোটি ৩২ লাখ টাকাই ইন্ডিয়ান লাইন অব ক্রেডিট (এলওসি) থেকে আসবে। অন্যদিকে ‘বিআরটিসি’র জন্য ট্রাক সংগ্রহ’ প্রকল্পের আওতায় ৫০০টি ট্রাক কিনতে মোট ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে ২১৭ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। এর মধ্যে ভারতীয় ঋণ ১৫৮ কোটি ৪০ লাখ টাকা।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্র জানায়, মঙ্গলবার (৩০ আগস্ট) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির(একনেক) সভায় চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য প্রকল্প দু’টি কার্যতালিকায় রাখা হয়েছে। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক সভায় সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেকের চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা।

ভারতীয় কোম্পানি অশোক লেল্যান্ডের কাছ থেকে প্রতিটি ৭২ লাখ টাকা দরে ৩০০টি ডাবল ডেকার, ৬৯ লাখ টাকা দরে একশ’টি এসি সিঙ্গেল ডেকার, ৭০ লাখ টাকা দরে একশ’টি সিঙ্গেল ডেকার এসি ইন্টারসিটি এবং ৪২ লাখ টাকা দরে একশ’টি সিঙ্গেল ডেকার নন-এসি বাস কেনা হবে। এসব বাসের অর্থনৈতিক আয়ুষ্কাল ধরা হয়েছে ১২ বছর।

বিআরটিসি’র চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত সচিব) মো. মিজানুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, ‘২০১৮ সালের মধ্যেই কেনার পর ৬০০টি বাস ঢাকাসহ সারা দেশে চলবে। যেখানে চাহিদা বেশি সেখানেই বাসগুলো দেওয়া হবে। তবে আর্টিকুলেটেড বাস কেনার পরিকল্পনা থেকে আমরা সরে এসেছি। কারণ, এ বাসগুলোর জনপ্রিয়তা নেই। তাই ডাবল ডেকার ও সিঙ্গেল ডেকার এসি-নন এসি বাস কেনা হবে’।

‘এ প্রকল্পের মাধ্যমে পুরনো ও অচল বাসের  চাহিদা প্রতিস্থাপন, ট্রাফিক সমস্যা সহজীকরণ ও ঢাকাসহ শহরতলীর বায়ু দূষণসহ পরিবেশ দূষণ কমানো হবে’।

বিআরটিসি সূত্র জানায়, বর্তমানে সংস্থাটির বহরে ৫৮৮টি পুরনো বাস রয়েছে, যেগুলো পরিবেশ দূষণ করছে। বাসের স্বল্পতার কারণে বিআরটিসি’র পক্ষে যাত্রীদের ক্রমবর্ধমান চাহিদাও মেটানো সম্ভব হচ্ছে না। এ কারণে নতুন ভারতীয় বাসগুলো কেনা হচ্ছে।

অন্যদিকে ১৫ টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ৩৫০টি ও ১০ টন মালামাল ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ১৫০টি ট্রাক কেনা হবে।

বাংলাদেশ খাদ্য অধিদফতর, বিএডিসি, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, বিজিপ্রেস, কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ড, বাংলাদেশ অক্সিজেন লিমিটেড, কর্ণফুলী পেপার মিল, বাংলাদেশ রেলওয়ে, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতর, বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন, বিটিভি, পিডিবি, আবহাওয়া অধিদফতর ও অন্যান্য বেসরকারি সংস্থার বিভিন্ন ধরনের পণ্য পরিবহনের কাজে বিআরটিসি’র এ ট্রাকগুলো ব্যবহার করা হয়।

মৌসুমী ফল, পোল্ট্রি সামগ্রী, ওষুধ, পোশাক শিল্পে ব্যবহৃত পণ্য সামগ্রী এবং অন্যান্য পচনশীল দ্রব্য পরিবহনে বিপুল সংখ্যক ট্রাকের চাহিদা রয়েছে। বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ কবলিত এলাকায় জরুরি ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছাতেও অনেক সময় পরিবহন সংকটের সম্মুখীন হতে হয়।

বিআরটিসি’র চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বলেন, ট্রাক সংকট দূর করতেই ৫০০টি ট্রাক কেনা হবে। ট্রাকগুলো সারা দেশে প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহার করা হবে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog