1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
  2. mohajog@yahoo.com : Daily Mohajog : Daily Mohajog
  3. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য স্বৈরশাসকদের বক্তব্যেরই প্রতিধ্বনি: রিজভী

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০১৭
  • ১০৬ বার

প্রতিবেদক : রামপাল বিরোধীদের সমালোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া বক্তব্যকে ‘স্বৈরশাসকদের বক্তব্যের প্রতিধ্বনি’ বলে মন্তব্য করেছে  বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।  রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “চট্টগ্রামে আইইবির অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যারা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের বিরোধিতা করছে, তাদের মানুষের জন্য কোনো দুঃখ নাই। তাদের রয়েল বেঙ্গল টাইগারদের সঙ্গে দেখা করা উচিৎ।

“প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য বিশ্বের স্বৈরশাসকদের বক্তব্যেরই প্রতিধ্বনি। কতটা বেপরোয়া ও স্বেচ্ছাচারি হলে এমন বক্তব্য তিনি দিতে পারেন, দেশের মানুষের অনুভূতির প্রতি তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করতে পারেন। এটা জাতির জন্য অপমানজনক।”

তিনি বলেন, “আমরা বলতে চাই, শুধুমাত্র প্রভুদের মন রক্ষায় সুন্দরবন ধবংসকারী এই প্রকল্প সরকার গায়ের জোরে এবং বিশ্ব জনমতকে উপেক্ষা করে স্থাপন করতে যাচ্ছে।”

শনিবার চট্টগ্রামে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশের (আইইবি) ৫৭তম কনভেনশনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা কয়লাভিত্তিক ওই বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিরোধিতাকারীদের উদ্দেশে বলেন, “রামপাল গিয়ে দেখে আসুন কতদূর ওখান থেকে সুন্দরবন। আমি তো বলব রামপালের ওখান থেকে পদযাত্রা শুরু করেন সুন্দরবন পর্যন্ত। তাহলে জানতে পারবেন সুন্দরবন কতদূর।”

“মানুষের ভাল মন্দ দেখার দরকার নাই, সেখানে সুন্দরবনের রয়েল বেঙ্গল টাইগারের জন্য তারা কাঁদছেন। সুন্দরবনে গিয়ে রয়েল বেঙ্গল টাইগারদের সাথে দেখা করে তারা জিজ্ঞাসা করুক, কোনো অসুবিধা হচ্ছে কি না।”

“রয়েল বেঙ্গল যদি অভুক্ত থাকে, তাহলে তো আর কথাই নেই…,” হেসে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের সরকারের ব্যাখ্যার সমালোচনায় রিজভী বলেন, “দেশের ৯৯ ভাগ জনগণ রামপালে বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপনের ঘোর বিরোধী। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যারা কয়লা পুড়িয়ে বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপন করেছিল তারা এখন এই ধরণের পরিবেশ বিধ্বংসী প্রকল্প থেকে সরে আসতে শুরু করেছে।

“কেবল তাই নয়, আমাদের প্রতিবেশি দেশও এই ধরনের প্রকল্প স্থাপন করতে দেয়নি। আর প্রধানমন্ত্রী শুধুমাত্র বিদেশি শক্তি, যারা তাকে ক্ষমতায় রেখেছে, তাদেরকেই তিনি মান্য করতে এই প্রকল্প স্থাপন করতে চাচ্ছেন।”

সার্চ কমিটির চিঠি প্রসঙ্গে

রুহুল কবির রিজভী বলেন, “শনিবার সন্ধ্যায় সার্চ কমিটির চিঠিটা পেয়েছি। আমরা এটা অবহিত করেছি পার্টির চেয়ারপারসন ও মহাসচিবকে। আজকে (রোববার) রাত ৯টায় দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক, সেখানে নাম পাঠাবেন কি না পাঠাবেন, তার সিদ্ধান্ত হবে।”

সার্চ কমিটি ক্ষমতাসীন দলের মনোভাবাপন্ন লোকদের দিয়ে গঠিত হওয়ায় তাদের কাছ থেকে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন হবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন রিজভী।

তিনি বলেন, “এই অনুসন্ধান কমিটি আওয়ামী শাসকগোষ্ঠির ছায়াসঙ্গি, বর্তমান ভোটারবিহীন সরকারের বর্ধিত প্রকাশ। এরা কতটুকু নিরপেক্ষ ইসি গঠন করতে পারবে, সেবিষয়ে জনমনে তীব্র সন্দেহ হওয়ার যথেষ্ট কারণ রয়েছে। ইতোপূর্বে অনুসন্ধান কমিটির পূর্বাপর ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, অনুসন্ধান কমিটির বাটন ছিল প্রধানমন্ত্রীর হাতে।”

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog