1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha : Sardar Dhaka
  2. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
  3. rafiqul@mohajog.com : Rafiqul Islam : Rafiqul Islam
  4. sardar@mohajog.com : Shahjahan Sardar : Shahjahan Sardar
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৪:৪০ অপরাহ্ন

মিউনিখ কনফারেন্সে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী, আলোচনা হবে রোহিঙ্গা ইস্যুতেও

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ১৯৫ বার

প্রতিবেদক : মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্সে যোগ দিতে বৃহস্পতিবার ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এবারই প্রথম বাংলাদেশের কোনো রাষ্ট্র বা সরকার প্রধান এই সম্মেলনে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রণ পেলেন বলে বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী জানান।  ১৭ থেকে ১৯ ফেব্রুয়ারি চলা এই সম্মেলনের মাঝে জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মেরকেলের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক হবে।

সম্মেলনের বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “পোল্যান্ড, ফিনল্যান্ড, নরওয়ে, তুরস্কসহ ২০টি দেশের রাষ্ট্র বা সরকার প্রধান নিরাপত্তা সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন বলে আশা করা যাচ্ছে। “এছাড়া ন্যাটো, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, গ্রিন পিস, ট্রান্সপ্যারেন্সি ইন্টারন্যাশনালসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার বিশেষজ্ঞ প্রতিনিধিদেরও সম্মেলনে অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে।”

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে জার্মানি সফরে কথা বলবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমরা ইতিমধ্যে ইউরোপীয় কমিশনের সঙ্গে কথা বলেছি এবং অবশ্যই জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের সঙ্গে বৈঠকেও এ ইস্যুতে কথা হবে।’

জার্মানির মিউনিখে নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল আগামীকাল বৃহস্পতিবার ঢাকা ছাড়বে। চার দিনের এই সরকারি সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে বসবেন।

মাহমুদ আলী বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে সারা বিশ্ব বাংলাদেশের সঙ্গে রয়েছে। এরই মধ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের জন্য জাতিসংঘ মিয়ানমারকে কড়া ভাষায় সমালোচনা করেছে। তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করি, রোহিঙ্গা ইস্যুতে আমরা সঠিক অবস্থানে রয়েছি। কারণ, সারা বিশ্ব বুঝতে পেরেছে যে রোহিঙ্গারা কতটা দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।’

রোহিঙ্গাদের ঠেঙ্গারচরে স্থানান্তরের বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কক্সবাজার দেশের প্রধান পর্যটনকেন্দ্র, এটাকে ধ্বংস হতে দেওয়া যেতে পারে না। তিনি বলেন, ‘পরিবেশ ও স্থানীয় লোকজনের সমস্যার কথাও আমাদের বিবেচনা করতে হবে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ঠেঙ্গারচরে রোহিঙ্গাদের চিরদিনের জন্য থাকতে হবে না, কারণ তাদের নিজেদের দেশে ফেরত পাঠানো হবে। রোহিঙ্গাদের এখনই স্থানান্তর করা হচ্ছে না। তাদের পাঠানোর আগে অবকাঠামো নির্মাণ ও জীবিকার ব্যবস্থা করা হবে।

রোহিঙ্গাদের ক্রমান্বয়ে নোয়াখালীর হাতিয়ার ঠেঙ্গারচরে পাঠানোর প্রাথমিক প্রক্রিয়া শুরু করেছে সরকার।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, দুই নেতার বৈঠকে যেসব বিষয়ে মতবিনিময় হবে সেগুলো হচ্ছে- উন্নয়ন সহযোগিতা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পারস্পরিক সহযোগিতা, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঝুঁকি প্রশমন, ইউরোপে চলমান শরণার্থী ও অভিবাসন সংকট, বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস জঙ্গিবাদসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বিষয়।
বৈঠকের পর দুই শীর্ষ নেতার উপস্থিতিতে সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ নিরোধে নিয়মিত কূটনৈতিক আলোচনার লক্ষ্যে একটি যৌথ ঘোষণাপত্র স্বাক্ষরিত হতে পারে বলে।

১৯৬৩ সালে মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্সের যাত্রা শরু হয়। স্নায়ুযুদ্ধের পটভূমিতে তৈরি হলেও পাঁচ দশকের বেশি সময় ধরে এই সম্মেলন বিশ্ব নিরাপত্তা ও বিভিন্ন পরিবর্তনের প্রেক্ষিত নিয়ে আলোচনা করে থাকে। সময়ের সঙ্গে এটি বর্তমান বিশ্ব নিরাপত্তা আলোচনায় সেরা ‘থিঙ্ক ট্যাঙ্ক কনফারেন্স’ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 Mohajog