1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
  2. mohajog@yahoo.com : Daily Mohajog : Daily Mohajog
  3. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ন

শিশু জিহাদ হত্যায় চার জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ১০৬ বার

প্রতিবেদক: রাজধানীর শাহজাহানপুরে বহুল আলোচিত শিশু জিহাদের মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা হত্যা মামলায় চার জনের ১০ বছর কারাদণ্ড দিয়েছে ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ আদালত। এছাড়া দুই আসামীকে খালাস দেয়া হয়েছে।

ঢাকার ৫নং বিশেষ জজ ড.আখতারুজ্জামান এ রায় দেন। গত ৮ ফেব্রুয়ারি আসামি ও রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শেষে রায় ঘোষণার জন্য ২৬ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন তিনি।

মামলায় বিভিন্ন সময়ে মোট ১৩ জন সাক্ষী আদালতে তাদের সাক্ষ্য প্রদান করেন। এর মধ্যে সাফাই সাক্ষ্য পেশ করেন তিনজন।২০১৬ সালের ৪ অক্টোবর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন একই আদালত।

২০১৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর শাহজাহানপুরে রেলওয়ে মাঠের পাশে খেলতে গিয়ে ওয়াসার ঢাকনা খোলা পরিত্যাক্ত পাম্পের পাইপে পড়ে শিশু জিহাদের মৃত্যু হয়। দীর্ঘ ২৩ ঘণ্টার শ্বাসরুদ্ধকর নাটকীয় অভিযান শেষে জিহাদকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। দুই বছর আগের সেই ঘটনা দেশবাসীর মনে আজো দাগ কেটে আছে। এই মৃত্যু নিয়ে নানা তর্ক-বিতর্ক হয়েছে।

এরপর ২৮ ডিসেম্বর জিহাদের পরিবারের জন্য ৩০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে চিল্ড্রেন চ্যারিটি বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুল হালিম হাইকোর্টে রিটটি দায়ের করেন। একই দিন জিহাদকে জীবিত উদ্ধারে সরকারি সংস্থাগুলোর ব্যর্থতা তদন্তে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন কমিটি গঠনের নির্দেশনা চেয়ে অন্য একটি রিট আবেদন দায়ের করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ মাইনুল হক।এ ঘটনায় জিহাদের বাবা নাসির ফকির ‘দায়িত্বে অবহেলায়’ জিহাদের মৃত্যুর অভিযোগ এনে শাহজাহানপুর থানায় এ মামলা করেন।

২০১৬ সালের ৩১ মার্চ ডিবি পুলিশের উপ-পরিদর্শক মিজানুর রহমান রেলওয়ের সহকারী জ্যেষ্ঠ ইঞ্জিনিয়ার জাহাঙ্গীর আলমসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। মামলার অপর আসামিরা হলেন বাংলাদেশ রেলওয়ের সহকারী প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম, দীপন কুমার ভৌমিক, নাসির উদ্দিন ঠিকাদার, শফিকুল ইসলাম ও ইলেকট্রিশিয়ান জাফর আহম্মেদ শাকি।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog