1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৪:২০ অপরাহ্ন

মাওলানা সাঈদীর রিভিউ শুনানি ৬ এপ্রিল: এ্যাটর্নী জেনারেল

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩ এপ্রিল, ২০১৭
  • ১৯১ বার

প্রতিবেদক: মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর রায়ের বিরুদ্ধে পুনর্বিবেচনা (রিভিউ) চেয়ে উভয়পক্ষের করা আবেদনের শুনানি ৬ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন এ্যাটর্নী জেনারেল  মাহবুবে আলম।

আবেদনটি সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের কার্যতালিকায় আসার পর সোমবার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ৬ এপ্রিলের মধ্যে শুনানি শুরু হলে প্রস্তুতি নেয়ার সুযোগ পাবেন বলেও আশাবাদী তিনি।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেওয়া ফাঁসির রায় পুনর্বহাল চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আর সর্বোচ্চ আদালতের চূড়ান্ত রায়ে দেওয়া আমৃত্যু কারাদণ্ড থেকে খালাস চেয়ে আবেদন জানান সাঈদী।

দু’টি রিভিউ আবেদনের শুনানিই একসঙ্গে নেবেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ। এ বেঞ্চের সোমবারের কার্যতালিকায় ১৪৭ নম্বর ক্রমিকে ছিল আবেদন দু’টি। তবে আদালতের নির্ধারিত সময় শেষ হয়ে যাওয়ায় ওঠেনি।

গত বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর সংক্ষিপ্তাকারে সাঈদীর আপিল মামলার চূড়ান্ত এ রায় দেয় আপিল বিভাগ। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর মৃত্যুদণ্ডাদেশের সাজা কমিয়ে তাকে আমৃত্যু কারাদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়।

সে সময়কার প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের আপিল বিভাগ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে এ রায় দেন। বিচারপতিদের মধ্যে মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা সব অভিযোগ থেকে সাঈদীকে খালাস দেন। আর বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী আসামির মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে রায় দেন। তবে প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন, বিচারপতি এস কে সিনহা ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর মতামতে সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় আসে।

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১।

ট্রাইব্যুনালের এ রায়ের বিরুদ্ধে ওই বছরের ২৮ মার্চ সাঈদী ও সরকারপক্ষ পৃথক দু’টি আপিল দাখিল করে। ট্রাইব্যুনালের রায়ে সাজা ঘোষিত না হওয়া ৬টি অভিযোগে শাস্তির আর্জি জানিয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আর সাঈদীর ফাঁসির আদেশ থেকে খালাস চেয়ে আসামিপক্ষ আপিল করেন।

২০১৩ সালের ১৬ এপ্রিল আপিল মামলাটির শুনানি শেষ হওয়ায় রায় ঘোষণা অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখে আপিল বিভাগ। এর পাঁচ মাসের মাথায় সংক্ষিপ্ত রায় দেয় দেশের সর্বোচ্চ আদালত। আর পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হলো তারও পনের মাসের বেশি সময় পর।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog