1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:৪১ অপরাহ্ন

রাজ্যের স্বার্থে তিস্তায় ‘না’ মমতার

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৫ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৬১ বার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ‘বাংলাদেশকে ভালোবাসি। কিন্তু আমাদের রাজ্যকেও তো দেখতে হবে।’ সোমবার কোচবিহারে প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে তিস্তা প্রসঙ্গে এমন মন্তব্য করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মমতা বলেন, আগে তো ফারাক্কার পানি দিয়েছি। বাংলার (পশ্চিমবঙ্গ) মানুষ পানি পাওয়ার পর যদি থাকে, তবে নিশ্চয়ই দেব।’

মমতা বলেন, ‘বাংলা যদি পানি না পায়, তাহলে আমরা কী করতে পারি? আমি তো ইতিমধ্যে তিস্তার বদলে তোর্সা, মানসাই নদীর পানির কথা বলেছি।’

রাজ্যের মানুষের অসুবিধা না হলে বাংলাদেশকে পানি দিতে কোনো আপত্তি নেই বলে উল্লেখ করেন মমতা।

চলতি মাসের শুরুর দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নয়াদিল্লি সফরের সময় তাঁকে তিস্তার বদলে বিকল্প প্রস্তাব দেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী।

ওই সময় শেখ হাসিনাকে মমতা বলেন, ‘তিস্তা নিয়ে আমাদেরই অনেক সমস্যা রয়েছে। আপনারা বরং তোর্সা, ধানসিঁড়ি, মানসিঁড়ির মতো উত্তরবঙ্গের অন্য নদীগুলোর পানি নিন।’

তিস্তা নিয়ে মমতার এই বিকল্প প্রস্তাব দুই দেশের শীর্ষ নেতৃত্ব আমলে নেয়নি; বরং তা উভয় দেশের শীর্ষ পর্যায়ে অস্বস্তি সৃষ্টি করে।

বৈঠক শেষে তিনি কোচবিহারের রাজবংশী সম্প্রদায়ের মানুষের উন্নয়নে জন্য রাজবংশী উন্নয়ন পর্ষদ তৈরির কথা ঘোষণা করেন।

কোচবিহারে নেতাজী সুভাষ ইন্দোর স্টেডিয়ামে প্রশাসনিক বৈঠকের পর কোচবিহার অ্যাকাডেমিতে রাজ পরিবারের কয়েকজন সদস্যকে অন্তর্তভূক্ত করার কথা জানিয়েছেন তিনি।

প্রশাসনিক বৈঠকের পর সাংবাদিক সম্মেলনে কোচবিহার জেলার উন্নয়ন মূলক কাজের প্রশংসা করেন মমতা। আগামী জুলাই মাস থেকে কোচবিহারে নয় আসনের বিমান পরিষেবা চালু করা হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন। রাজ্য সরকার এই বিমান চালানোর ক্ষেত্রে ভর্তুকি দেবে বলেও জানান তিনি।

দ্বিতীয় বার মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর এটিই ছিল তার প্রথম কোচবিহার সফর।

সূত্র: কলকাতা২৪

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog