1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৪৪ পূর্বাহ্ন

এশিয়ায় সবচেয়ে বেশি ফাঁসি কার্যকর পাকিস্তানে

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ২৯ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৬১ বার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: গেল বছরে এশিয়ার ১১টি দেশে কমপক্ষে ১৩০টি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে পাকিস্তানে। তবে এ হিসাবে চীনে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। যদিও চীন বিশ্বে শীর্ষ মৃত্যুদণ্ডদাতা দেশ হিসেবে পরিচিত।

ভারতের ডেটাবেইস ডেটালিডস পরিচালিত জরিপের বরাত দিয়ে এশিয়া নিউজ নেটওয়ার্কের খবরে জানানো হয়, পাকিস্তানে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর উল্লেখযোগ্য হারে কমিয়ে আনায় এশীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে মৃত্যুদণ্ড কমেছে। ২০১৫ সালে এশীয় প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে মৃত্যুদণ্ডের সংখ্যা ছিল ৩৬৭। সেটি কমে ২০১৬ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ২৩৯-এ।

পাকিস্তানে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের সংখ্যা ২০১৫ সালে ছিল ৩২৬। আর ২০১৬ সালে সেটি কমে এসে দাঁড়িয়েছে ৮৭-তে। এশীয় অঞ্চলে এখনো পাকিস্তান মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের দিক থেকে শীর্ষে।

২০১৬ সালে বাংলাদেশে ১০ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে খুনের দায়ে আটজনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। আর ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে দুজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

মালয়েশিয়ায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের হার বেড়েছে। ২০১৬ সালে দেশটিতে নয়জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। ২০১৪ সালে ছয়জনের ও ২০১৫ সালে একজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

আফগানিস্তানে গত বছরের শেষে ৬০০ জনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের দায়ে আটজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

গত বছর ইন্দোনেশিয়ায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। তাঁদের মধ্যে তিনজন ছিলেন বিদেশি। একজন ইন্দোনেশীয়। মাদকসংক্রান্ত অপরাধের দায়ে চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

গত বছর সিঙ্গাপুরে হত্যা ও মাদক পাচারের দায়ে চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। তাঁদের মধ্যে দুজন মালয়েশীয় নাগরিক। একজন নাইজেরীয়। তবে দেশটি দোষী ব্যক্তিদের মৃত্যুদণ্ডাদেশ পর্যালোচনার জন্য নতুন নির্দেশাবলি জারি করেছে।

জাপান গত বছর তিনজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে। তাঁদের মধ্যে দুজন পুরুষ ও একজন নারী।

তাইওয়ান তিন সপ্তাহে একজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog