1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:৪১ পূর্বাহ্ন

হোয়াইট হাউসে ইঁদুর, তেলাপোকা আর পিঁপড়ার উপদ্রব

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ৯৬ বার

হোয়াইট হাউসে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কর্মকর্তারা রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীদের কাছে কয়েক ডজন সমস্যার কথা জানিয়েছিলেন যার মধ্যে ছিল ইঁদুর-তেলাপোকা-পিঁপড়ার উপদ্রব আর সেই সাথে টয়লেটের ভেতর ভাঙ্গা সিট।

হোয়াইট হাউজে রক্ষণাবেক্ষণ কাজের আদেশের একটি তালিকা সংগ্রহ করেছে এনবিসি ওয়াশিংটন। এর মধ্যে বারাক ওবামার প্রশাসনের শেষ বছরের কার্যাদেশও রয়েছে। সেই তালিকা থেকেই এসব তথ্য জানা গেছে। খবর বিবিসির

এর আগে হোয়াইট হাউসে নৌবাহিনীর কর্মকর্তাদের মেসে খাবার সরবরাহ করা হয় যেখান থেকে, সেখানে এবং হোয়াইট হাউসের সিচুয়েশন রুমেও ইঁদুর দেখা গেছে বলে অভিযোগ করা হয়।

গত দু বছরে এসব সমস্যার সমাধানের জন্য কয়েকশো অনুরোধ জানানো হয়েছিল।

ইউ এস জেনারেল সার্ভিসেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (জি এস এ) রক্ষণাবেক্ষণ কাজগুলোর তদারকি করে। এর সাবেক ইন্সপেক্টর জেনারেল ব্রায়ান মিলার এনবিসি ওয়াশিংটনকে বলেন, ‘সেগুলোতো খুব পুরনো ভবন ।’

‘এরকম পুরোনো বাড়ি যাদের আছে, তারা জানে যে এরকম বাড়িতে কী পরিমান কাজ থাকে ।’

এই কার্যাদেশ তালিকা দেখে বোঝা যাচ্ছে, ডাইনিং রুমে তেলাপোকা আর চিফ অব স্টাফ কোয়ার্টারগুলোতে পিঁপড়া খুব বড় সমস্যা। সাংবাদিকরা কাজ করেন যে প্রেস লবিতে, সেখানকার রান্নাঘরে তেলাপোকা আর পিঁপড়া, দুটিরই উপদ্রব।

এ বছরের শুরুতে ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তারা যখন হোয়াইট হাউসে আসেন, তখন এসব উপদ্রব মোকাবেলার পাশাপাশি আরও অনেক মেরামতের কাজের অনুরোধ জানানো হয়েছিল।

সাবেক প্রেস সেক্রেটারি শন স্পাইসার তার অফিসের আসবাবপত্র সরানোর জন্য আবেদন করেছিলেন।

অন্যদিকে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স তার ফায়ার প্লেসের সামনের বিখ্যাত ‘মার্থা ওয়াশিংটন চেয়ার’ এর পায়া মেরামত করার জন্য রক্ষণাবেক্ষণ কর্মী চেয়েছেন।

এছাড়াও ফার্স্ট লেডির তিন তলার ইস্ট উইং অফিসে সাজানোর জন্য নতুন পর্দা লাগানোর অনুরোধ করা হয়েছিল।

মিস্টার মিলার বলেন যে হোয়াইট হাউসের রক্ষণাবেক্ষণ করা সাঙ্ঘাতিক কাজ, এর একটা বড় কারণ স্থানটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব।

হোয়াইট হাউসের ২০ বছরের রীতি ভেঙেছেন ট্রাম্প, এবার রমজানের নৈশভোজ হয়নি
হোয়াইট হাউসের গত প্রায় ২০ বছরের রীতি ভেঙে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবার মুসলমানদের পবিত্র রমজান মাস শেষের নৈশভোজের আয়োজন করেন নি। সাবেক প্রেসিডেন্ট ক্লিনটনের সময় থেকে প্রতি বছরই এই ডিনারের আয়োজন করা হচ্ছিল।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আমেরিকান জনগণের পক্ষ থেকে মেলানিয়া এবং আমি মুসলিমদের প্রতি ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আমাদের উষ্ণ শুভেচ্ছা জানিয়েছি।’

‘এই ছুটির সময় আমাদের করুণা, দয়া এবং শুভেচ্ছার গুরুত্ব মনে করিয়ে দেয়া হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের মুসলিমদের সাথে এসব মূল্যবোধকে সম্মান করার অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করছে। ঈদ মুবারক ।’

জানা গেছে যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন এবার এরকম একটি সংবর্ধনা আয়োজনের অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেছেন। মে মাসে রয়টার খবর দেয়, টিলারসন পররাষ্ট্র দপ্তরের এ সংক্রান্ত একটি সুপারিশ প্রত্যাখ্যান করেন।

তবে টিলারসন একটি সংক্ষিপ্ত বিবৃতি দিয়ে মুসলিমদের প্রতি ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বিগত নির্বাচনের প্রচারাভিযানের সময় তার মুসলিম-বিরোধী কথাবার্তার জন্য সমালোচিত হয়েছিলেন – যার মধ্যে একটি ছিল মসজিদের ওপর নজরদারির আহ্বান।

জানা যায়, হোয়াইট হাউসে প্রথম ইফতার ডিনার দেয়া হয়েছিল ১৮০৫ সালে – প্রেসিডেন্ট টমাস জেফারসনের সময়, একজন তিউনিসিয়ান রাষ্ট্রদূতের সম্মানে।

পরে মার্কিন ফার্স্ট লেডি হিলারি ক্লিনটন এই প্রথা পুনরুজ্জীবিত করেন ১৯৯৬ সালে।

১৯৯৯ সাল থেকে এটা হোয়াইট হাউসের নিয়মিত অনুষ্ঠানে পরিণত হয় – যাতে মার্কিন মুসলিম সমাজের নেতৃবৃন্দ, কূটনীতিক এবং আইনপ্রণেতারা যোগ দিতেন।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog