1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha :
  2. mohajog@yahoo.com : Daily Mohajog : Daily Mohajog
  3. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০৭:০৩ অপরাহ্ন

ভয়াবহ বিমান হামলায় নিহত ২৫, আহত ৫৫

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ১২৭ বার

ইরাক ও সিরিয়ায় ইরান সমর্থিত সশস্ত্র গোষ্ঠী কাতাইব হিজবুল্লাহর অবস্থান লক্ষ্য করে রোববার ভয়াবহ বিমান হামলা চালিয়েছে মার্কিন বাহিনী। এর আগে গত শুক্রবার উত্তরাঞ্চলীয় ইরাকের কিরকুকের সামরিক ঘাঁটিতে চালানো রকেট হামলায় এক মার্কিন বেসামরিক ঠিকাদার নিহত হন। জানা যায়, ওই রকেট হামলার প্রতিশোধ হিসাবে মাত্র দু দিন পরই হিজবুল্লাহর ঘাঁটিগুলো লক্ষ্য করে এই বিমান হামলা চালালো যুক্তরাষ্ট্র।

ইরাকের নিরাপত্তা ও মিলিশিয়া সূত্রের বরাত দিয়ে কাতারভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল জাজিরা জানায়, রোববার বিকেলে ইরাক ও সিরিয়ার সীমান্তবর্তী ৪৫ ও ৪৬ নম্বর ব্রিগেডের ওপর ড্রোন ব্যবহার করে হামলা চালায় মার্কিন বাহিনী। এসব হামলায় অন্তত ২৫ জন নিহত এবং আরো ৫৫ জন আহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে হিজবুল্লাহর কমপক্ষে চারজন কমান্ডারও রয়েছেন।

মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পেন্টাগন এক বিবৃতিতে একথার সত্যতা নিশ্চিত করে জানায়, তারা হাশদ আশ-শাবির সঙ্গে সংশ্লিস্ট হিজবুল্লাহ’র কয়েকটি অবস্থানে বিমান হামলা চালিয়েছে। এ হামলার জের ধরে ইরাকের সবগুলো মার্কিন ঘাঁটিকে সর্বোচ্চ প্রস্তুত অবস্থায় রাখা হয়েছে। সবমিলিয়ে হিজবুল্লাহর মোট পাঁচটি ঘাঁটিতে বিমান হামলা চালানো হয়। এর মধ্যে ইরাকে তিনটি এবং সিরিয়ার দুটি

ইরাকের প্রেসিডেন্ট বারহাম সালিহ ও প্রধানমন্ত্রী আদেল আব্দুল-মাহদি সেদেশের আধাসামরিক বাহিনীর ঘাঁটিতে মার্কিন হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। তারা বলেছেন, এ হামলার মাধ্যমে ইরাকের সার্বভৌমত্বের প্রতি আঘাত হেনেছে যুক্তরাষ্ট্র।

তবে ইসরাইলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইসরায়েল কাত্‌য ইরাকের আধাসামরিক বাহিনীর ঘাঁটিতে মার্কিন বিমান হামলাকে স্বাগত জানিয়ে একে মধ্যপ্রাচ্যের চলমান ঘটনাপ্রবাহে একটি গুরুত্বপূর্ণ সন্ধিক্ষণ বলে বর্ণনা করেছেন।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার কিরকুকে ইরাকি এক সামরিক কম্পাউন্ড লক্ষ্য করে কমপক্ষে ৩০টি রকেট হামলা চালানো হয়। ওই কম্পাউন্ডে বেশ কিছু মার্কিন সেনাও অবস্থান করছে। হামলায় এক মার্কিন ঠিকাদার নিহত এবং আরো বেশ কিছু মার্কিন ও ইরাকি সেনা আহত হয় বলে জানা যায়।

কোনো গোষ্ঠী এ হামলার দায় স্বীকার করেনি। কিন্তু মার্কিন কর্মকর্তারা ইরাকে এসব হামলার জন্য ইরান সমর্থিত হিজবুল্লাহ গোষ্ঠীকে দায়ী করে থাকেন। যার ফলে ওই হামলার জবাবে রোববার ইরাক ও সিরিয়ায় ওই মার্কিন বিমান হামলার ঘটনাটি ঘটে।

 

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Mohajog