1. sardardhaka@yahoo.com : adminmoha : Sardar Dhaka
  2. nafij.moon@gmail.com : Nafij Moon : Nafij Moon
  3. rafiqul@mohajog.com : Rafiqul Islam : Rafiqul Islam
  4. sardar@mohajog.com : Shahjahan Sardar : Shahjahan Sardar
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ০৩:৩৭ অপরাহ্ন

বিএসএফের পাল্টা হামলায় পাক রেঞ্জার্সের ১২ জওয়ান নিহত

মহাযুগ নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৪ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ১৫৪ বার

পাক রেঞ্জার্সের গুলিতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) এক জওয়ানের মৃত্যুর পর পাল্টা হামলায় নিহত হয়েছেন ১২ পাকিস্তানি রেঞ্জার্স সদস্য। একই সঙ্গে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে পাকিস্তানের ৫টি সীমান্ত চৌকি।

ভারতীয় বাহিনীর গোলাবর্ষণে ধ্বংস হয়ে গিয়েছে পাকিস্তানের ৩টি মর্টার শেলিং পয়েন্টও। বিএসএফ সূত্রে এই গোলাবর্ষণের কথা জানানো হয়েছে।

গত মধ্যরাত থেকে ভারী গোলাবর্ষণ শুরু করে বিএসএফ। জম্মু-কাশ্মীরের সাম্বা সেক্টর থেকে এই আঘাত হানা হয়েছে বলে বিএসএফ-এর তরফে জানানো হয়েছে।

গতকালই পাক বাহিনী সংঘর্ষ বিরতি লঙ্ঘন করে হামলা চালিয়েছিল। শুধু গোলাবর্ষণ নয়, বিএসএফ জওয়ানদের নির্দিষ্ট করে নিশানা বানানোর চেষ্টা হয় স্নাইপার শটের মাধ্যমে। তাতেই মৃত্যু হয় হীরানগর সাব-সেক্টরে কর্মরত বিএসএফ জওয়ান রাধাপদ হাজরার। গতকাল ওই জওয়ানের জন্মদিনও ছিল।

বিকালে পাক রেঞ্জার্সের পরিকল্পিত হামলার পর মধ্যরাত থেকেই পাল্টা আঘাত হানতে শুরু করে দেয় বিএসএফ। সাম্বা সেক্টর থেকে ভারী গোলাবর্ষণ শুরু হয়।

বিএসএফ সূত্রে জানা গিয়েছে, নিয়ন্ত্রণরেখার ও পারে পাক রেঞ্জার্সের ৫টি পোস্ট গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে ৩টি মর্টার শেলিং পয়েন্টও, যেখান থেকে নিয়মিত মর্টার ছুড়ত পাক বাহিনী।

বিএসএফ-এর এই বিধ্বংসী আঘাতেই পাক বাহিনীর ১০-১২ জন সদস্যের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। রাধাপদ হাজরার মৃত্যুর বদলা নিতেই এই হামলা, এমনই জানানো হয়েছে বিএসএফ সূত্রে।

কাশ্মীরে দুই সপ্তাহের মধ্যে ১১ সেনা নিহত
ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে দু’সপ্তাহের মধ্যে ১১ সেনা নিহত হয়েছেন। সর্বশেষ বুধবার নিহত হয়েছেন বিএসএফের হেড কনস্টেবল আর পি হাজরা (৫০)।

বিএসএফের এক কর্মকর্তা জানান, পাকিস্তানি সেনারা বুধবার বিকালে সাম্বা সেক্টরে ভারতীয় সেনাচৌকি লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করলে তিনি মারা যান।

পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার বাসিন্দা আর পি হাজরা নামে ওই জওয়ানের গতকালই জন্মদিন ছিল। পাক বাহিনীর গুলিতে গুরুতর আহত হলে তাকে দ্রুত স্থানীয় একটি চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই তিনি মারা যান। পাক বাহিনীর পদক্ষেপের পাল্টা জবাবি গুলিবর্ষণ করা হয়েছে বলে ওই বিএসএফ কর্মকর্তা জানান।

এর আগে গত ৩১ ডিসেম্বর জম্মু-কাশ্মীরের রাজৌরি জেলায় নিয়ন্ত্রণরেখা পাক সেনাদের গুলিবর্ষণে জগসির সিং (৩২) নামে এক সেনা নিহত হন। গত ২৩ ডিসেম্বর রাজৌরিতে নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর সেনাবাহিনীর এক মেজরসহ ৪ সেনা জওয়ান নিহত হন।

এছাড়া, গত ৩১ ডিসেম্বর ভোরে কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় আধাসামরিক বাহিনী সিআরপিএফ প্রশিক্ষণ শিবিরে গেরিলা হামলায় ৫ সিআরপিএফ সদস্য নিহত হন।

অন্য এক পরিসংখ্যানে প্রকাশ, গত এক দশকের মধ্যে ২০১৭ সালে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে সবচেয়ে বেশি যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করা হয়েছে। এর ফলে সেনাবাহিনীর ১৯ এবং বিএসএফের ৪ সদস্যসহ ৩৫ ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

এদিকে, বৃহস্পতিবার ভোরে কাশ্মীরের আর এস পুরার অরনিয়া সেক্টরে বিএসএফের গুলিতে এক পাকিস্তানি ‘অনুপ্রবেশকারী’ নিহত হয়েছে।

বিএসএফের এক কর্মকর্তা বলেন, বৃহস্পতিবার ভোরে পাকিস্তানের দিক থেকে একজনের গতিবিধি লক্ষ্য করে তাকে প্রহরারত বিএসএফ জওয়ানরা থামতে বলে। কিন্তু তা না শুনে সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তি এগোনোর চেষ্টা করলে বিএসএফ গুলি চালালে তিনি মারা যান।

সূত্র: আনন্দবাজার

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 Mohajog